আজাদ আবুল কালাম একটি প্রতিষ্ঠানের নাম (ভিডিও)

আজাদ আবুল কালাম একটি প্রতিষ্ঠানের নাম (ভিডিও)

একাধারে অভিনেতা, নাট্যকার, নির্দেশক ও সংগঠক এবং প্রতিটি পরিচয়ে তিনি আলাদাভাবে সাফল্য দেখিয়েছেন। দেশের নাট্যাঙ্গনে এমন বহুমুখি প্রতিভা হাতে গোনা যে কজন আছেন, আজাদ আবুল কালাম তাঁদের মধ্যে অন্যতম। থিয়েটার অঙ্গনে তিনি পাভেল আজাদ নামেও পরিচিত।

আজ ২৬ অক্টোবর অভিনেতা-নাট্যকার ও নির্দেশক আজাদ আবুল কালামের  জন্মদিন।  ১৯৬৬ সালের  ২৬ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন এই মহান শিল্পী ।

আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে এক বন্ধুর সঙ্গে গেলেন নাটকের মহড়া দেখতে। কোনো চিন্তাভাবনা ছাড়াই ভর্তি হয়ে গেলেন নাট্য কর্মশালায়। সেই থেকে আরণ্যকের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা। মামুনুর রশীদের নেতৃত্বাধীন ‘আরণ্যক’ নাট্যদলের সক্রিয় সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন আজাদ আবুল কালাম। পরবর্তীতে আরণ্যক থেকে বের হয়ে ১৯৯৭ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি আরো কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে গড়েছেন নাট্য সংগঠন ‘প্রাচ্যনাট’।

প্রাচ্যনাটে তাঁর নির্দেশনায় ‘রাজা এবং অন্যান্য’, ‘এ ম্যান ফর অল সিজনস’, ‘সার্কাস সার্কাস, ‘ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি’ নাটকগুলো প্রশংসিত হয়েছে। এর আগে বাংলা থিয়েটারে ‘আদিম’ এবং আরণ্যকের প্রযোজনায় ‘আগুনমুখা’ নির্দেশনা দিয়েও নাট্যাঙ্গনে নজর কেড়েছেন। আর তাঁর নির্দেশনায় থিয়েটারওয়ালা রেপার্টরি’র প্রযোজনায় ‘শাইলক এন্ড সিকোফ্যান্টস’ নাটকটি তো ঢাকা নাট্যাঙ্গনে ভিন্ন মাত্রা যোগ করেছে।

থিয়েটারের পাশাপাশি টেলিভিশন নাটক ও সিনেমায় অভিনয় করেও দেশজুড়ে তারকাখ্যাতি পেয়েছেন। ১৯৯৫ সালে আজাদ টেলিভিশন নাটকে প্রথম অভিনয় করেন মামুনুর রশীদ নির্দেশিত বিশ্বাস  নাটকে। ১৯৯৭ সালে তিনি “প্রাচ্যনাট” নাট্যদল প্রতিষ্ঠা করেন। ২০০০ সালে কিত্তনখোলা দিয়ে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। যাত্রাদলের সদস্যদের জীবন সংগ্রাম নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেন আবু সাইয়ীদ। পরের বছর তিনি আশিক মোস্তফা পরিচালিত ফুলকুমার চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ২০০৪ সালে ফকির লালন সাঁইয়ের জীবনীভিত্তিক চলচ্চিত্র লালন এ লালনের যুবক বয়সের চরিত্রে অভিনয় করেন। চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন তানভীর মোকাম্মেল।

২০০৪ সালে তিনি ঢাকা নাট্য উৎসবের জন্য উদিচী নাট্যগোষ্ঠী থেকে বউ বাসন্তি মঞ্চ নাটক নির্দেশনা করেন। এছাড়া বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার অভিনয়শিল্পীদের নিয়ে নির্মিত বাবরনামা নাটকের অন্যতম নির্দেশক।

২০১১ সালে তিনি বাহাত্তর ঘণ্টা এবং মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক তিনটি চলচ্চিত্র মেহেরজান, খণ্ডগল্প ৭১ ও গেরিলা এ অভিনয় করেন। ২০১২ সালে তিনি সবুজ ভেলভেট নাটকে অভিনয় করেন। এই নাটকের জন্য তিনি সমালোচক শাখায় সেরা নাট্যকার বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন এবং সেরা নাট্য অভিনেতার পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। ২০১৩ সালে তিনি অনিশ্চিত যাত্রা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

২০১৪ সালে মুরাদ পারভেজ পরিচালিত বৃহন্নলা চলচ্চিত্রে একজন হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার আরজ আলীর চরিত্রে অভিনয় করেন। এই ছবিতে অভিনয়ের জন্য তিনি মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার এ সমালোচক শাখায় সেরা চলচ্চিত্র অভিনেতার পুরস্কারে মনোনীত হন। এ বছর তিনি আদনান তাবাসসুম সৌরভ নির্দেশিত রুদ্ধদ্বার কবি  নাটকে কবি ফেরদৌস শাহরিয়ার চরিত্রে এবং নাট্যকার সেতু আরিফের নির্দেশনায় দূরবীন দূরত্ব সময় নাটকে অভিনয় করেন। এছাড়া বাংলাভিশনে প্রচারিত নিয়াজ মাহবুবের নির্দেশনায় কালো মখমল, তার নিজের পরিচালনায় মাছরাঙ্গা টেলিভিশনে প্রচারিত ক্ষণিকালয় ও বিটিভিতে প্রচারিত বনফুলের গান এবং এনটিভিতে প্রচারিত এজাজ মুন্নার যোগাযোগ গোলযোগ ধারাবাহিক নাটকে কাজ করেন।

২০১৫ সালে বিজয় দিবসের বিশেষ নাটক বায়োস্কোপ এ একজন বায়োস্কোপওয়ালা চরিত্রে অভিনয় করেন। এই বছর তার রচিত ও নির্দেশিত মঞ্চ নাটক ট্র্যাজেডি পলাশবাড়ি নাটকটি কলকাতায় অনুষ্ঠিত ব্রাত্যজন আন্তর্জাতিক থিয়েটার উৎসবে মঞ্চস্থ হয়। ২০১৬ সালে চয়নিকা চৌধুরীর নির্দেশনায় একি সোনার আলোয় নাটকে অভিনয় করেন। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেন আফসানা মিমি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here