একুশে টিভিকে বয়কট করেছে এফটিপিও

একুশে টিভিকে বয়কট করেছে এফটিপিও

অবশেষে একুশে টেলিভিশনকে বর্জনের ডাক দিলো (FTPO) ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনালস অর্গানাইজেশন । দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে একুশে টেলিভিশনকে তাগিদ দেওয়া হয়েছে । তারপরও সেই বিষয়ে কোন পদক্ষেপ না নেওয়ার কারনেই আজকের এই বয়কট । একুশে টেলিভিশনের চেয়ারম্যানকে লেখা এক চিঠিতে সেই কথায় বলা হয় । চিঠিতে আরও বলা হয়, এরপরও দাবি না মানলে ফেডারেশন ভুক্ত ১৫টি সংগঠনের সকল শিল্পী কলাকুশলী একযোগে একুশে টেলিভিশন বর্জন করতে বাধ্য হবে।

ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনালস অর্গানাইজেশন-এর চিঠি নিম্নরুপ –

বরাবর,

চেয়ারম্যান

একুশে টেলিভিশন

১০, কাওরান বাজার ঢাকা

বিষয় : প্রতিশ্রুত বকেয়া অর্থ প্রদান না করা প্রসঙ্গে

জনাব,

শুভেচ্ছা জানবেন । একুশে টেলিভিশন আমাদের সবার ভালবাসার টেলিভিশন । এর সাথে জড়িয়ে আছে আমাদের আবেগ । আর তাই যখনই আপনাদের পক্ষ থেকে আহবান জানানো হয় আমরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একুশে টেলিভিশনের অনুষ্ঠান নির্মাণের ব্যাপারে তৎপর হই । দীর্ঘদিন আমরা নিজেদের আর্থিক অনিশ্চয়তা সত্ত্বেও আপনার চ্যানেলে অনুষ্ঠান সম্প্রচারের মাধ্যমে ভূমিকা রেখে চলেছি। কিন্তু সময়ের আবর্তে আমাদের অর্থনৈতিক অবস্থা সংকীর্ণ হয়েছে। এর কারন সময়মতো আপনার চ্যানেল থেকে অর্থ না পাওয়া। এখন সেই অর্থ কয়েক কোটি টাকার বিশাল এক অংকে এসে দাঁড়িয়েছি। যা আমাদের জন্য অত্যন্ত উদ্বেগের। এই কারণে গত ১৭ জুন ২০১৯ টেলিপ্যাব নেতৃবৃন্দ আপনাদের সাথে যৌথ সভায় মিলিত হয়। সেই সভায় আপনারা অর্থ বকেয়া রাখার বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে যত দ্রুত সম্ভব পাওনা পরিশোধের পক্ষে মত দেন। সভায় টেলিপ্যাবের নেতৃবৃন্দ আপনাদের সিদ্ধাকে স্বাগত জানিয়ে আশা প্রকাশ করেন যে, ২০১৬ এবং তারপরের বকেয়ার মধ্যে কোন প্রকার বিভাজন না রেখে সকল বকেয়া অর্থ পরিশোধের একটি কার্যকর রূপরেখা প্রদান এবং তা দ্রুত বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহন করা। আপনারা তাতে সম্মত হয়ে জুলাই ২০১৯ এর প্রথম সপ্তাহে পুনরায় বৈঠকে বসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। সেই প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী পরবর্তীতে আপনাদের কোন সাড়া না পেয়ে টেলিপ্যাব নেতৃবৃন্দ আন্তঃ সংগঠন এবং পরবর্তিতে এফটিপিও চেয়ারম্যান জনাব মামুনুর রশীদের নেতৃত্বে গত ১৪-১০-২০১৯ তারিখে আপনাদের সাথে জরুরী সভায় মিলত হন। সেই সভায় আপনারা একমাসের সময় নিয়ে অডিট রিপেটি সহ বকেয়া পরিশোধের একটি পুর্নাঙ্গ রূপরেখা প্রদান এবং তা কার্যকর করার কথা বলেন। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এখনও সেই প্রতিশ্রুতি ব্যক্তবায়ন হয়নি। আমরা এই সংকট অবসানকল্পে গত ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে একটি পত্র প্রদান করি যার মধ্যে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখের মধ্যে প্রতিশ্রুত অর্থ পরিশোধ করার কার্যকর রূপরেখা প্রদান করে ক্ষতিগ্রস্থ প্রযোজক, নির্মাতাদের পাশে দাঁড়াতে আহবান জানাই। কিন্তু সেই সময়সীমা অতিবাহিত হয়ে গেলও এখন পর্যন্ত আপনাদের কোন উদ্যোগ আমরা লক্ষ করছি না। ইতিমধ্যে আমাদের সদস্যদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। ক্ষতিগ্রস্থ প্রযোজকরা আজ নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। এমতবস্থায় আমাদের সমুদয় বকেয়া পরিশোধের রূপরেখা আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ এর মধ্যে প্রকাশ না করলে আমরা আমাদের ফেডারেশন ভুক্ত ১৫ টি সংগঠনের সকল শিল্পী কলাকুশলী একযোগে একুশে টেলিভিশন বর্জনের ডাক দিতে বাধ্য হবো।

যারা সই করেছেন

আমরা বিশ্বাস করি আমাদের সমস্যা এবং এর থেকে উত্তোরণের একমাত্র উপায় আপনাদের হাতেই। আপনারা পারেন অর্থলগ্নিকারীর আবেগ অনুভূতি এবং অসহায়ত্বের ভাষা বুঝতে। তাই আশা করি নিঃস্ব প্রযোজকদের দীর্ঘ দিনের বকেয়া টাকা পরিশোধের মাধ্যমে একুশে টেলিভিশন আমাদের মাধ্যমের সকলের সাথে সুন্দর এবং কার্যকর সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে অগ্রনী ভূমিকা পালন করে কৃতজ্ঞতার পাশে আবদ্ধ করাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here