টেলিভিশন কেন্দ্রিক সবগুলো সংগঠন একযোগে সাংবাদিক গ্রেফতার ও নির্যাতনের প্রতিবাদ জানালো

0
173
টেলিভিশন কেন্দ্রিক সবগুলো সংগঠন একযোগে সাংবাদিক গ্রেফতার ও নির্যাতনের প্রতিবাদ জানালো

মামুনুর রশীদ চেয়ারম্যান এফটিপিও এর নেতৃত্বে এর ৪ টি সংগঠন, ইরেশ যাকের সভাপতি, টেলিপ্যাব, সালাহউদ্দিন লাভলু, সভাপতি ডিরেক্টরস গিল্ড, ও মহাসচিব এফটিপিও, শহীদুজ্জামান সেলিম, সভাপতি অভিনয় শিল্পী সংঘ, মাসুম রেজা, সভাপতি টেলিভিশন নাট্যকার সংঘ, সাজু মুনতাসির, সাধারণ সম্পাদক টেলিপ্যাব, এস এম কামরুজ্জামান সাগর, সাধারণ সম্পাদক ডিরেক্টরস গিল্ড, আহসান হাবীব নাসিম, সাধারণ সম্পাদক অভিনয় শিল্পী সংঘ, এজাজ মুন্না, সাধারণ সম্পাদক টেলিভিশন নাট্যকার সংঘ এক যৌথ বিবৃতি দিয়ে প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে   গ্রেফতার ও নির্যাতনের প্রতিবাদ করেছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে – “তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ’’ গতকাল বাংলাদেশের সচিবালয় সর্বোচ্চ সতর্কতার মধ্যে প্রথম আলোর সিনিয়র রিপোর্টার রোজিনা ইসলামকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একান্ত সচিবের কক্ষে যেভাবে নিপীড়ন করা হয়েছে তাতে অতীতে এই ধরনের ঘটনা কখনো প্রত্যক্ষ করা যায়নি। সৎ সাংবাদিকতার প্রতীক এই নারী সাংবাদিকটি তার পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জৈনিক অতিরিক্ত সচিবের কোপানলে পড়ে যায় । এরপর তার বর্বরতা সমস্ত ভব্যতার  সীমা অতিক্রম করে । শুধু তাই নয় পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখার পর প্রশাসনিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে তাকে থানায়  পাঠিয়ে দেয়া হয় ।সেখানে অসুস্থ এই নারী সাংবাদিককে সারারাত আটকে রেখে আদালতে হাজির করা হয় । সেখান থেকে আদালত তাকে জেলে পাঠিয়ে দেয় । পুরো বিষয়টি আমাদের বিবেককে ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছে ।এই কর্মকান্ডের সাথে জড়িত সকল কর্মকর্তার শাস্তি কামনা করছি এবং রোজিনা ইসলামের অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানাচ্ছি ।

টেলিভিশন কেন্দ্রিক সবগুলো সংগঠন একযোগে সাংবাদিক গ্রেফতার ও নির্যাতনের প্রতিবাদ  জানালো

প্রসঙ্গত , গতকাল সোমবার পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সেখানে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা করা হয়। তাঁকে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য বারবার বলা হলেও দেওয়া হয়নি। পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে পুলিশ তাঁকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায়। ওই দিন রাত পৌনে ১২টার দিকে পুলিশ জানায়, রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা হয়েছে। তাঁকে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। আজ পুলিশ তাঁকে আদালতে হাজির করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করলেও আদালত তা নাকচ করে দেন। পাশাপাশি রোজিনা ইসলামকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here