নাকে অক্সিজেনের নল নিয়ে ফেসবুক লাইভে সুমন (ভিডিও)

0
104

দমে যাননি তিনি। হাসপাতালে শয্যাশায়ী হয়েও ওপার বাংলার কিংবদন্তি শিল্পী কবীর সুমন নিয়মিত বাঁধছেন নতুন সুর।

আশ্চর্য্য হলেও সত্য আজ (১ জুলাই) নাকে বাঁধা ছিল অক্সিজেনের নল নিয়ে ফেসবুক লাইভে এসে কথাও বলেছেন তিনি, শুনিয়েছেন নতুন সুরের কিছু লাইন। 

জানিয়েছেন আগের চেয়ে এখন অনেকটাই সুস্থ, তবে পুরোপুরি নয়।

সুমন বলেন, ‘আগে কী হয়েছিল একটু ছোট করে জেনে নিন। আগেই একটু ঠান্ডা লেগেছিল। কিন্তু রবিবার (২৭ জুন) যেটা হলো, কোনোভাবেই ঢোক গিলতে পারছি না। অসম্ভব ব্যথা গলায়। অন্য কোনও সমস্যা নেই। একদমই ঢোক গিলতে পারছিলাম না; খাবার খাওয়া তো দূরের কথা। কেমন একটা কেলেঙ্কারি অবস্থা! এরপর প্রফেসর সৌমিত্র ঘোষের সঙ্গে কথা হয়। তিনি চমৎকারভাবে বলেন, স্যার হাসপাতালে চলে আসুন।’

এরপর কবীর সুমন রবিবার (২৭ জুন) রাতে এসএসকেএম হাসপাতালে আসেন।

সুমন জানান, এরপরই চিকিৎসকরা ঢোক গিলতে না পারা সমস্যার সমাধান করেন। গত তিন দিনে বেশ সুস্থ আছেন বলে জানান বাংলা গানের এই কিংবদন্তি।

গান প্রসঙ্গে বলেন ‘আমি দ্রুত সেরে উঠছি। শুনতেই পারছেন পাশে তানপুরা বাজছে। আমি যখন পুরোপুরি সেরে উঠতে পারবো তখন পুরো সুর লাগাতে পারবো। হাসপাতালে আজ সকালেই আমি গুন গুন করে ভৈরবী-ভৈরব, ভাটিয়ালি গাইছিলাম। রাগ প্রতিমা বেঁধেছি। এরমধ্যে রাগ প্রতিমা আমার নতুন সৃষ্টি।’

এ সময় দু’লাইন গেয়েও শুনিয়েছেন সুমন। 

বলেন, ‘বাংলা খেয়াল আমার গাইতেই হবে। পশ্চিমবঙ্গে বাংলা থাকবে যদি মমতা থাকে। আমি যে গাইছি, রাগ তৈরি করছি এর কৃতিত্ব মমতার। বাংলা গান বা সংস্কৃতির এই চর্চা হচ্ছে মমতার জন্যই। আমরা তো হিন্দুস্তানি সংগীতের লোক। আমাদের কাছে ঈশ্বর, আল্লাহর চেয়ে গুরু বড়। আমাদের গুরুরা যে শিক্ষা দিয়েছে সেটাই চর্চা করি। এটাই আমাদের এক ধরনের হজ। দীর্ঘ জার্নি।’

আজ বিশ্ব চিকিৎসক দিবস। মূলত এ কারণেই লাইভে এসেছেন বলে জানান তিনি। ধন্যবাদ দেন এসএসকেএম হাসপাতালের চিকিৎসকসহ সব স্বাস্থ্যকর্মীকে। ভূয়সী প্রশংসা করেন কলকাতার বর্তমান হাসপাতাল ব্যবস্থাকে। আমাদেরও প্রত্যাশা কবির সুমন দ্রুত সুস্থ হয়ে আবারও তাঁর ভরাট কণ্ঠের যাদুতে মুগ্ধ করবেন শ্রোতাদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here