বাংলার শেষ নবাব একজন আনোয়ার হোসেন

বাংলার শেষ নবাব একজন আনোয়ার হোসেন

‘আমিই বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলা’। ১৯৬৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘নবাব সিরাজউদ্দৌল্লা’ চলচ্চিত্রে এ রকমই গলা কাঁপানো সংলাপ দিয়ে মানুষের হৃদয় কাঁপিয়েছিলেন চলচ্চিত্রপ্রেমীদের বাংলার মুকুটহীন নবাব আনোয়ার হোসেন। আজ সেই কিংবদন্তীর অষ্টম মৃত্যু বার্ষিকী। ২০১৩ সালের এই দিনে তিনি চলে যান না ফেরার দেশে।

আনোয়ার হোসেনের জন্ম ১৯৩১ সালের ৬ নভেম্বর জামালপুর জেলার মুরুলিয়া গ্রামের মিয়াবাড়িতে। আনোয়ার হোসেন দীর্ঘ পাঁচ দশক তাঁর ভক্তকূলকে উপহার দিয়ে গেছেন সূর্যস্নান, জীবন থেকে নেয়া, জয় বাংলা, অরুণোদ্বয়ের অগ্নিস্বাক্ষী, লাঠিয়াল, পালঙ্ক, গোলাপী এখন ট্রেনে, সুন্দরী, সখিনার যুদ্ধ, নাজমা, সূর্যগ্রহণ, সূর্যসংগ্রাম, দায়ী কে, সত্য মিথ্যার মতো প্রায় তিনশটি কালজয়ী ছবি।

তাঁর সর্বশেষ কাজ ২০০৬ সালের কাজী মোরশেদ পরিচালিত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া ছবি ‘ঘানি’। আনোয়ার হোসেনের অভিনয় আর ভক্তের প্রতি প্রেম তাঁকে এনে দেয় নিগার পুরস্কার। ১৯৮৫ সালে তিনি একুশে পদক ও দুবার বাচসাস পুরস্কার লাভ করেন। ২০১০ সালের ৩ এপ্রিল বাংলাদেশ সরকার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের পাশাপাশি আনোয়ার হোসেনকে প্রদান করে আজীবন সম্মাননা। ২০১৩ সালের ১৮ আগস্ট শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আনোয়ার হোসেনকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। ১৩ সেপ্টেম্বর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮২ বছর বয়সে ঢাকার চলচ্চিত্রের ‘নবাব’ অভিনেতা আনোয়ার হোসেন মারা যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here