বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় নির্মাতা

‘নিয়তির খেলা’ নির্মাণের মধ্য দিয়ে পরিচালক হিসেবে বাংলাদেশ ফ্লিম ইন্ডাস্ট্রিতে প্রথম আত্মপ্রকাশ করেন  শাহ আলম কিরণ। ‘রিমেক সুজন সখি’, ‘বিচার হবে’, ‘শেষ ঠিকানা’ ছবিতে সালমান শাহের সঙ্গে কাজ করেছেন। ‘শেষ ঠিকানা’ করতে গিয়ে আত্মহত্যা করেছিল সালমান শাহ । তখন অমিত হাসানকে দিয়ে এই ছবি তিনি শেষ করেন। এরপর  ‘জীবন দিয়ে ভালোবাসি’, ‘প্রতিশোধের আগুন প্রভৃতি আলোচিত ছবি নির্মাণ করেন। তার শেষ ছবি’ ৭১-এর মা জননী’ মুক্তি পায় ২০১৪ সালে।

১৯৭১ সালে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষার্থী  শাহ আলম কিরণ মহানমুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন ২ নং সেক্টরে। নাখালপাড়ার সন্তান কিরণ যুদ্ধ শেষে ফিরে এসে চলচ্চিত্রে জড়িত হন। সিরাজুল ইসলাম ভুঁইয়ার সহকারী হিসেবে ‘দস্যুরাণী’ ছবিতে কাজ করেন প্রথম ১৯৭৩ সালে। ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ ছবিতে সহযোগী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন গৌতম ঘোষ এর সঙ্গে। ‘মনের মানুষ’, ‘শঙ্খচিল’এই দুই ছবিতেও তিনি  কাজ করেছেন।

১৫০টির মত ছবিতে অভিনয়ও করেছেন শাহ আলম কিরণ। পরিচালক সমিতির তিনবারের সাধারণ সম্পাদক ও একবারের মহাসচিব ছিলেন শাহ আলম কিরণ। শাহ আলম কিরণের জন্ম নোয়াখালির প্রত্যন্ত অঞ্চলে ১৯৫১ সালের ৫ সেপ্টেম্বরে । তার পিতা আলহাজ মফিজুর রহমান ভূঁইয়া ও মা আয়েশা রহমান।

তার যখন দেড় বছর বয়স, তখন তার বাবা মা নোয়াখালি থেকে ঢাকার নাখালপাড়ায় চলে আসেন। পরে এখানেই স্থায়ী বসতি গড়েন। তাঁর  পরে আরও পাঁচ ভাইবোন রয়েছে। ওদের সবার জন্ম নাখালপাড়াতে। তার স্ত্রী শায়লা আলম। এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে পরিবার। ছেলে মাহফুজ রহমান ভূঁইয়া নর্থসাউথ ইউনির্ভাসিটি থেকে পড়ালেখা করে অস্ট্রেলিয়া গেছেন । মেয়ে শৈলী শারমীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআর থেকে মার্স্টাস করে এখন প্রবাসী। 

আজ ৫ সেপ্টেম্বর । বাংলাদেশের অসংখ্য সুপারহিট ছবির পরিচালক শাহ আলম কিরণ এর আজ জন্মদিন । তাঁর জন্মদিনে বিনোদন প্রতিদিন পরিবার জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here